রবিবার , ১৩ আগস্ট ২০২৩ | ৯ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. আইন আদালত
  2. আন্তর্জাতিক
  3. ইতিহাস ও ঐতিহ্য
  4. কৃষি
  5. ক্যাম্পাস
  6. জাতীয়
  7. তথ্য ও প্রযুক্তি
  8. নির্বাচনী সংবাদ
  9. ফিচার
  10. বিনোদন
  11. মুক্ত মন্তব্য
  12. রাজনীতি
  13. সম্পাদকীয়
  14. সাক্ষাৎকার
  15. সারাদেশ

গাইবান্ধায় ২৬ লক্ষ মানুষের সেবা জন্য নির্মিত হচ্ছে অত্যাধুনিক হাসপাতাল। 

প্রতিবেদক
FIRST BANGLA NEWS
আগস্ট ১৩, ২০২৩ ৬:৩৩ অপরাহ্ণ

মনিরুজ্জামান খান গাইবান্ধা:

গাইবান্ধা জেলা আধুনিক ও উন্নত স্বাস্থ্য সেবা দেওয়ার লক্ষ্যে ২শ’৫০ শয্যা বিশিষ্ট গাইবান্ধা জেলা

হাসপাতালে তৈরি করা হয়েছে নুতন  দশ তলা আধুনিক ভবন। হাসপাতালটির পুরাতন ভবনের পাশে ১৭ হাজার ৫০০ স্কয়ার ফিট এলাকা জুড়ে নবনির্মিত এই দশ তলা ভবনে থাকছে চিকিৎসা সেবার সকল আধুনিক উপাদান। এটি নির্মাণ শেষ হলে গাইবান্ধার চিকিৎসা সেবা খাতে এক নতুন দিগন্ত উন্মোচিত হবে বলে আশা করছেন সেবা প্রত্যাশী মানুষ।

গণপূর্ত বিভাগের তত্ত্বাবধানে ৩৪ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত এই ভবনটির কাজ শুরু হয় ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে যা এখনো চলমান রয়েছে। এরই মধ্যে ভবনটির প্রায় ৯০ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান দ্যা ইঞ্জিনিয়ারিং লিমিটেড।

লিফট, দুইটি সিড়ি, উন্নত মানের সাধারণ ওয়ার্ড, কেবিন রুম, নিজস্ব বৈদ্যুতিক সাব স্টেশন, ২৪ ঘন্টা নিরবিচ্ছিন্ন হাইফ্লো অক্সিজেন প্লান্ট, মর্গ, মরদেহ সংরক্ষণাগারসহ বিভিন্ন আধুনিক সুযোগ-সুবিধা সম্বলিত এই নুতন ভবন হাসপাতালটি। চালু হলে সেবার মান বেড়ে যাবে কয়েকগুণ। শুধু তাই নয় আইসিইউ সুবিধা থাকায় রোগীকে নিয়ে আর রংপুর-বগুড়ায় নিয়ে যাওয়ার জন্য ছোটাছুটি করতে হবে না। ফলে ভোগান্তি কমবে রোগী ও স্বজনদের।

গাইবান্ধা জেলা গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ আসাদুজ্জামান বলেন, আমরা নিয়মিত হাসপাতালের ভবন নির্মাণ কাজটি তদারকি ও পর্যবেক্ষণ করছি । ২০১৯ সালে কাজ শুরু হলেও নানা জটিলতায় প্রকল্পের মেয়াদ বেড়ে গেছে।

ইতিমধ্যে, মূল ভবনের ৯০ শতাংশ কাজ শেষ এখন শুধু সার্ভিস বিল্ডিং ও লিফট

সংযোজনের কাজ বাকি আছে সব ঠিক থাকলে আগামী বছরের মধ্যে সম্পূর্ণ ভাবে এই হাসপাতালের প্রকল্পের কাজ শেষ হবে।

গাইবান্ধা জেলা হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডাক্তার মাহবুব হোসেন বলেন, গাইবান্ধায় এই প্রথম কোন সরকারি ১০ তলা ভবন নির্মিত হচ্ছে। হাসপাতালের এ নতুন ভবনটি চালু হলে

চিকিৎসা সেবার মান বাড়ার পাশাপাশি শয্যা সঙ্কট অনেকটাই দূর হবে বলে জানান ।

জানা যায়, ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট গাইবান্ধা জেলা হাসপাতালে সব সময় রোগীর চাপ থাকে। মূলত হাসপাতালটির জনবল ও অবকাঠামো ১০০ শয্যার কিন্তু জেলার প্রায় ২৬ লাখ মানুষকে চিকিৎসা সেবা দিতে গিয়ে ২৫০ শয্যায় উন্নীত করা হয়। শয্যা সংখ্যা বাড়লেও কমে যায় সেবার মান। এতে বেড়ে যায় হাসপাতালে আসা সেবা প্রত্যাশীর ভোগান্তি। এমন সংকট নিরসনে স্বাস্থ্য সেবা হাতের নাগালে রাখতে সরকার একটি দশ তলা ভবন নির্মাণের পরিকল্পনা গ্রহণ করার পর তা এখন অনেকটাই দৃশ্যমানও বাস্তবে রুপ নিচ্ছে।

যা গাইবান্ধা জেলা মানুষের  জন্য একটি মডেল হিসেবে হাসপাতালটি মানুষের মাঝে পরিচিত পাবে বলে বিশ্বাস সচেতন নাগরিক মহলের।

সর্বশেষ - জাতীয়

আপনার জন্য নির্বাচিত

বীরগঞ্জে ট্রাক চাপায় কৃষি শ্রমিক নিহত

দিনাজপুর সদরসহ তিন উপজেলায় নির্বাচনে ৩১ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে  

দিনাজপুর আদালতে আত্মসমর্পণ করতে গিয়ে, কারাগারে মেয়র জাহাঙ্গীর আলম ।

শিশুদের জন্য স্কুলভিত্তিক বই ঘর পাঠাগার উদ্বোধন

বিলুপ্তপ্রায় বিষধর শঙ্খিনী সাপ উদ্ধার।

গোবিন্দগঞ্জে পারিবারিক শত্রুতার জের ধরে গৃহবধুকে মারপিট, শ্লীলতাহানি ও স্বর্নের চেইন ছিনতাই এর অভিযোগ

দিনাজপুরে স্তন ক্যান্সার সচেতনতা দিবস

পলাশবাড়ীর বিদায়ী ইউএনও কামরুজ্জামান কে সংবর্ধনা দিলো রিপোর্টাস ইউনিটি

দিনাজপুরে বিএনপির ইউনিয়ন পর্যায়ে লিফলেট  বিতরণ সমাপ্ত 

গাইবান্ধায় স্বামীকে মারধর করে স্ত্রীকে নিয়ে উধাও পরকীয়া প্রেমিক!স্বামীর সংবাদ সম্মেলন।