বৃহস্পতিবার , ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | ২রা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. আইন আদালত
  2. আন্তর্জাতিক
  3. ইতিহাস ও ঐতিহ্য
  4. কৃষি
  5. ক্যাম্পাস
  6. জাতীয়
  7. তথ্য ও প্রযুক্তি
  8. নির্বাচনী সংবাদ
  9. ফিচার
  10. বিনোদন
  11. মুক্ত মন্তব্য
  12. রাজনীতি
  13. সম্পাদকীয়
  14. সাক্ষাৎকার
  15. সারাদেশ

বরগুনার তালতলীর শিক্ষা অফিসারের অনিয়ম ও দুর্নীতির তদন্ত শুরু 

প্রতিবেদক
FIRST BANGLA NEWS
সেপ্টেম্বর ২৮, ২০২৩ ৬:১৭ অপরাহ্ণ

মোঃ ইমরান হোসেন, স্টাফ রিপোর্টারঃ 

 বরগুনার তালতলী উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার ( ভারপ্রাপ্ত) মোঃ মনিরুল  ইসলামের বিরুদ্ধে অনিয়ম ও দুর্নীতির তদন্ত শুরু হয়েছে। মঙ্গলবার   উপজেলা প্রাধমিক শিক্ষা অফিস কার্যালয়ে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আ: রাজ্জাক এ তদন্ত শুরু করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন সহকারী জেলা প্রাথমিক শিক্ষ অফিসার মুজাফ্ফর হোসেন। এর আগে উপজেলার ৪১ জন প্রধান শিক্ষক বিভিন্ন অনিয়ম-দুর্নীতির লিখিত অভিযোগ করেন জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের কাছে। এ নিয়ে  বিভিন্ন  পত্রিকায় প্রতিবেন ছাপা হয়। এতে নড়েচড়ে বসে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার। তিনি শিক্ষকদের অভিযোগের তদন্ত কার্যক্রম হাতে নেয়।

৪১ জন  প্রধান শিক্ষক স্বাক্ষরিত অভিযোগে  জানা গেছে , গত ২০১৯ সালে মনিরুল ইসলাম তালতলী উপজেলা সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার হিসেবে যোগদান করেন। এর পরে চলতি বছরের ২৬ জানুয়ারি থেকে ভারপ্রাপ্ত উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার হিসেবে দায়িত্ব পায়। দায়িত্ব পেয়েই তিনি নানাবিধ অনিয়মের সাথে জড়িয়ে পড়েন। বিদ্যালয় ভিত্তিক উন্নয়ন কর্মসূচির শ্লিপ  প্রকলপে বরাদ্দের টাকা উত্তোলন করতে অগ্রিম ঘুষ না দিলে তিনি বরাদ্দের টাকা উত্তোলনের কাগজে স্বাক্ষর দেন না। তাকে টাকা না দিলে শিক্ষকদের নানাভাবে হয়রানি করে। এছাড়া শিক্ষকদের বকেয়া বেতন থেকে সিংহভাগ টাকা তাকে দিতে হয়। নগদ অর্থের বিনিময়ে ডেপুটেশন আদেশে বদলির ব্যবস্থা করেন। বিদ্যালয় পরিদর্শনে গিয়ে অর্থ আদায়। এছাড়াও সম্প্রতি শেষ হওয়া বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা ফুটবল টুর্নামেন্টের জন্য বরাদ্দকৃত সব টাকা আত্মসাৎ করেন। এ ছাড়া কথায় কথায় শিক্ষকদের সঙ্গে অশালীন আচরণ করেন তিনি।

প্রধান শিক্ষক মাঈনুল ইসলাম বলেন,  শিক্ষা অফিসার মোঃ মনিরুল ইসলামের অনিয়ম দুর্নীতির তদন্ত শুরু হয়েছে। আমরা আমাদের অভিযোগের লিখিত দিয়েছি।কর্তপক্ষ তার বিরুদ্ধে ব্যবস্হা নিবেন বলে তিনি আশা করেন।

ভারপ্রাপ্ত উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মনিরুল ইসলামকে মুঠো ফোনে কল দিলে তিনি বলেন, আমি তদন্তকারী কর্মকর্তাকে বক্তব্য দিবো। আপনাদের সাথে কি বলবো বলে  ফোন কেটে দেন।

বরগুনা জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার ও তদন্ত কর্মকর্তা মোঃ আব্দুর রাজ্জাক বলেন, শিক্ষকদের অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্তে এসেছি।

অভিযোগকারী শিক্ষকদের ডেকে তাদের কথা শুনেছি এবং জবানবন্দি লিখিত আকারে জমা নিয়েছি। অধিক গুরুত্ব দিয়ে বিষয়টি তদন্ত করবো। পরবর্তীতে তদন্ত রিপোর্ট যথাযথ কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠানো হবে।

সর্বশেষ - জাতীয়

আপনার জন্য নির্বাচিত

দিনাজপুর পৌরসভার সকল উন্নয়ন কাজ সমাপ্ত করার জন্য ৪০ কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছেন শেখ হাসিনা। 

অপহরণের ৭দিন পেরিয়ে গেলেও খোঁজ মিলছে না ৭ম শ্রেণির ছাত্রীর

ব্যক্তিগতভাবে ভালো হয়ে থাকাই যথেষ্ট নয়, সমাজকেও ভালো করার প্রচেষ্টা দরকার।

বালাগঞ্জের ফতুরখাড়া সেতু  নির্মাণে ব্যাপক অনিয়ম 

বীরগঞ্জে সাতোর ইউপি চেয়ারম্যানের উদ্যোগে দোয়া ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত

ফুলছড়িতে তেলজাতীয় ফসলের কৃষক মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত

সাদুল্লাপুর কৃষি সম্প্রসারণ অফিসের উদ্যোগে আলোক ফাঁদ উৎসব পালন

যশোরে তাপমাত্রা নেমেছে ১১ ডিগ্রি সেলসিয়াসে, হাড়কাঁপানো তীব্র শীতে কাঁপছে যশোরের মানুষ, বিপর্যস্ত জনজীবন

মাদ্রাসা ছাত্রীকে ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদে নোয়াখালীতে মানববন্ধন

দিনাজপুরে বাসের ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত, আহত ৩